Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, অপরাহ্ন

প্রচ্ছদ » অনুসন্ধান 

মংলা বন্দরে নিম্নমানের গম খালাসের পাঁয়তারা

মংলা বন্দরে নিম্নমানের গম খালাসের পাঁয়তারা
আবু হোসাইন সুমন ২০ অক্টোবর ২০১৫, ৫:২৪ পূর্বাহ্ন Print

মংলা, খুলনা: ফ্রান্স থেকে নিম্নমানের গম নিয়ে আসা সাইপ্রাস পতাকাবাহী এম,ভি পিনটেল নামে একটি জাহাজ প্রায় ২১ হাজার টন গম নিয়ে মংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলের হাড়বাড়িয়া এলাকায় অবস্থান করছে। খাদ্য বিভাগ জাহাজটিতে থাকা প্রায় ৪৪ কোটি টাকা মূল্যের খাবার অনুপযোগী ও নিম্নমানের গম প্রাথমিকভাবে গ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত নিলেও একটি প্রভাবশালী মহল এ গম খালাসের নানা ধরনের পাঁয়তারা চালাচ্ছে বলে বিভিন্ন সূত্র অভিযোগ পাওয়া গেছে।

খাদ্য অধিদফতরের মংলা আঞ্চলিক অফিস সূত্র জানায়, ফ্রান্স থেকে আমদানি করা গম নিয়ে জাহাজটি ১২ অক্টোবর দুপুরে মংলা বন্দরে প্রবেশ করে। গমের মান পরীক্ষায় ৬ সদস্যের কমিটি ১৩ অক্টোবর জাহাজে গিয়ে গম সরেজমিনে দেখে ও নমুনা সংগ্রহ করে। পরীক্ষায় নিম্নমান এবং খাবার অনুপযোগী থাকায় গম গ্রহণে অস্বীকৃতি জানানো হয়।

সাইপ্রাসের পতাকাবাহী এমভি পিনটেল জাহাজের স্থানীয় এজেন্ট লিটমন্ড শিপিং এজেন্টের পরিচালক আখতারুজ্জামান ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘জাহাজটিতে মোট ৫২ হাজার ৫০০ মে. টন গম আমদানি করা হয়েছিল। চট্টগ্রাম বন্দরে ৩১ হাজার ৫০০ টন গম খালাসের পর বাকি ২১ হাজার টন গম নিয়ে জাহাজটি ১২ অক্টোবর মংলা আসে।’

তিনি জানান, ‘যে গম চট্টগ্রামে খালাস হতে পারে, সেই একই গম মংলায় খালাস হতে দোষের কি? তিনি কিছু গমের নমুনা দেখিয়ে বলেন গমে একটু ডাস্ট বেশি, তবে খাবার অনুপযোগী নয়।’

তিনি আরও জানান, ‘জাহাজের হ্যাচের মধ্যে ৫ থেকে ৬ মাস ধরে গম আটকা থাকায় ২-৩ হাজার টন গমে পোকা ধরে গেছে। জাহাজটি ৫২ হাজার ৫০০ টন গম বোঝাই করে ৫-৬ মাস ধরে সাগরে ভাসছে। আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক কাজী নূরুল ইসলামের নেতৃত্বে ৬ সদস্যের মান নিয়ন্ত্রক কমিটি ১৩ অক্টোবর জাহাজটি পরিদর্শন করে গম সংগ্রহ করেন। তবে পরীক্ষায় কি এসেছে তা তারা জানেন না।’

লিটমন্ড শিপিং এজেন্টের খুলনার ম্যানেজার সৈয়দ মুরতজা আলী বাপ্পি ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘গম খালাস করতে দেরি হচ্ছে বলে তারা লিখিতভাবে খাদ্য অধিদফতরকে চিঠি দিয়েছেন। জাহাজটি থেকে গম খালাসের জন্য নিয়োগ করা হয়েছে খালিদ ব্রাদার্স নামক একটি স্টিভিডোরস কোম্পানিকে।’

প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী শেখ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ‘তারা জাহাজ থেকে গম খালাসের নিয়োগ পেলেও কাজ শুরু করার কোনো নির্দেশনা পাননি। খাদ্য বিভাগ সিদ্ধান্ত নিলেই গম খালাস কাজ শুরু হবে।’

মংলা বন্দর আমদানি গম খালাস তদারকি কমিটির অন্যতম সদস্য খাদ্য চলাচল ও নিয়ন্ত্রক নকীব সাদ সাইফুল ইসলাম ঘটনা স্বীকার করে ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘মহাপরিচালক ছাড়া এ বিষয়ে মিডিয়াকে কিছু বলতে পারেন না। খুলনায় গম পরীক্ষার জন্য কোন টেস্ট হাউস নাই, তাই টেস্ট করার জন্য নমুনা ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।’

খাদ্য চলাচল ও নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা নকীব সাদ সাইফুল ইসলাম ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘প্রাথমিকভাবে তাদের কাছ মনে হয়েছে আমদানিকৃত গমের মান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে, তাই গম খালাস না করার এই সিদ্ধান্ত। আমদানিকৃত গম খালাসের পূর্বে সেটি পরীক্ষার জন্য একজন বিদেশি বিশেষজ্ঞ চট্টগ্রামে অবস্থান করতেন। কিন্তু দুই বিদেশি হত্যাকাণ্ডের পর তিনিও দেশে ফেরত চলে গেছেন। এই কারণে চট্টগ্রামে কি হয়েছে তা বলতে পারবেন না।’

তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রাম বন্দরে ভাল গম নামাতে পারে, আর বাকি যা ছিল তা খারাপ হতে পারে। আমাদের চোখের দেখায় গম ভাল মনে হয়নি। এই গম যে কেউ কিছুদিন মজুত করলেই সমস্যায় পড়বে। তখন পোকায় গমের বেশিরভাগ অংশ খেয়ে ফেলবে। যে কারণে তাদের কমিটির এই সিদ্ধান্ত হয়েছে।’

মংলা বন্দরে আমদানিকৃত গম খালাসের তদারকি কমিটির আহ্বায়ক ও খুলনার আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক কাজী নূরুল ইসলাম ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘বিষয়টি খাদ্য মন্ত্রণালয়সহ আমদানিকারক ঠিকাদারকে জানানো হয়েছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের জন্য এই গম আমদানি করেছে ঢাকার ইমপেক্স কনসালটেন্ট লিমিটেড। নিম্নমানের গম কোনো অবস্থাতেই খালাস করা হবে না। এই গম মানব দেহের জন্য উপযোগী নয়, তবে পশু বা মাছের খাদ্যের জন্য অন্যরা এই গম নিতে পারে।’

এদিকে বিভিন্ন সূত্র জানায়, প্রভাবশালী মহলের চাপ রয়েছে এই পচা ও নিম্নমানের গম খালাস করতে। কিন্তু গমে দৃশ্যমান ক্রটিযুক্ত থাকায় মংলার গম খালাস তদারকি কমিটি খালাস করতে প্রাথমিকভাবে অনীহা প্রকাশ করে। পরে প্রভাবশালী মহলের চাপে গম পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। ওই সূত্রে আরও জানা গেছে, গমের আমদানিকারক ঠিকাদার ইমপেক্স কনসালট্যান্ট লিমিটেড খাদ্য বিভাগের ওপর প্রভাব বিস্তার করে গম খালাসের তৎপরতা চালাচ্ছে। তবে এ ব্যাপারে আমদানিকারক ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে কোন মতামত জানা যায়নি।

ব্রেকিংনিউজ/প্রতিনিধি/এমই



আপনার মন্তব্য

অনুসন্ধান বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং