Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, অপরাহ্ন

প্রচ্ছদ » অনুসন্ধান 

মূসক রশিদ ছাড়াই কর আদায় করছে ফেডএক্স-ডিএইচএল

মূসক রশিদ ছাড়াই কর আদায় করছে ফেডএক্স-ডিএইচএল
সুমন দত্ত ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ১১:০৬ পূর্বাহ্ন Print

ঢাকা: বিমান বন্দরের শুল্ক বিভাগের অব্যবস্থাপনার কারণে পার্সেল (শিপমেন্ট) বিলিতে গ্রাহকদের কাছ থেকে সরকারি মূসক রশিদ ছাড়াই কর আদায় করছে ফেডএক্স-ডিএইচএল।

সূত্র মতে জানা যায়, গত ১৭-১৮ দিন যাবত ফেডএক্স, ডিএইচএল গ্রাহকদের কাছে পার্সেল বিলি করছেন নিজেদের আরোপ করা শুল্ক রশিদে। পরে কাস্টমস থেকে শুল্ক আরোপের মুল রশিদ সংগ্রহ করে পার্সেল গ্রহীতাকে দেয়া হচ্ছে। সরকারি শুল্ক রশিদের আরোপিত অর্থ ফেডএক্স-ডিএইচএল আরোপিত শুল্কের টাকার চাইতে কম বা বেশি হলে পরে তা সমন্বয় করা হচ্ছে। গ্রাহকের অগোচরেই শুল্ক বিভাগ ও কুরিয়ার সার্ভিসের মধ্যে অর্থ সংক্রান্ত এসব লেনদেন সম্পন্ন হচ্ছে।

তাছাড়া শুল্ক ছাড়া কাস্টমস কি করে কুরিয়ার সার্ভিসকে মাল ডেলিভারি দিচ্ছে সেটিও একটি বড় প্রশ্ন।

এ নিয়ে ব্রেকিংনিউজের পক্ষ থেকে দুটি আন্তর্জাতিক কুরিয়ার সার্ভিসের দুটি শাখা অফিসে যোগাযোগ করা হয়। ফেডএক্স জানায়, শুল্ক বিভাগ আগে হাতে লিখে শুল্ক রশিদ দিত। এখন কম্পিউটারে ওই কাজটা করা হয়। এ কারণে রশিদ পেতে দেরি হচ্ছে। কিন্তু পার্সেল (শিপমেন্ট) আগে চলে আসায় তারা আমাদের ডেলিভারি ডিপার্টমেন্টকে ওইসব শিপমেন্ট দিয়ে দেয়। পরে আমরা শুল্ক রশিদ নিয়ে আসি। অনেক সময় কোনও কোনও মালের রশিদ পেতে ২-৩ সপ্তাহ লেগে যায়।

ডিএইচলের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা বলেন, যেখানে পার্সেলের ওপর এই কর আরোপ করা হয় সেখানে অফিস অটোমেশনের কাজ চলছে। যে কারণে পার্সেলের শুল্ক বিল পরে সরবরাহ করা হয়। ডিএইচএলের গ্রাহকরা পার্সেল পান দ্রুত। গ্রাহকদের কাছ থেকে শুল্ক বাবদ যে অর্থ আদায় করা হয় তা ডিএইচএল নিজ রশিদে আদায় করে। কাস্টমস বিভাগের রশিদে করা হয় না। পরে কাস্টমস বিভাগের রশিদ গ্রাহকদের সরবরাহ করা হয়। এতে কমবেশি হলে সমন্বয় করা হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গ্রাহক ব্রেকিংনিউজকে বলেন, সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র থেকে তার বোন অনলাইনে পোশাক অর্ডার করে দেশে পাঠিয়েছেন। ফেডএক্স থেকে ফোন করে তাদের শিপমেন্টের বিষয়ে জানানো হয় এবং অভিনব কায়দায় শুল্ক দেবার প্রস্তাব করা হয়। কিন্তু এর আগে তিনি এভাবে শুল্ক দেননি বলে অবাক হন এবং শিপমেন্ট গ্রহণ করেত রাজি হননি। শুল্ক বিভাগের রশিদেই তিনি শিপমেন্ট গ্রহণে রাজি। তার শিপমেন্ট আটকে রয়েছে ফেডএক্সে। কবে তিনি এই শিপমেন্ট পাবেন তা তিনি জানেন না।

বিষয়টি নিয়ে ঢাকা কাস্টমস বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করে ব্রেকিংনিউজ। শুল্ক ছাড়া দেশের কুরিয়ার সার্ভিসগুলো কীভাবে শিপমেন্ট পাচ্ছে তা জানতে চাইলে তারা অভিযোগ অস্বীকার করে। পরে তাদের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়। সেই কর্মকর্তা পুরো ঘটনার অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, শুল্ক ছাড়া কোনও মালই ছাড়ে না কর্তৃপক্ষ। সেখানে কুরিয়ার সার্ভিস কীভাবে মাল পাবে? শুল্ক রশিদ দিয়েই পার্সেল ছাড়া হয়। শুল্ক রশিদ ছাড়া মাল ডেলিভারি অসম্ভব।

ব্রেকিংনিউজ/এসডি



আপনার মন্তব্য

অনুসন্ধান বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং