Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

সোমবার ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, পূর্বাহ্ন

প্রচ্ছদ » অনুসন্ধান 

নন্দীগ্রামে পশুর হাটে অতিরিক্ত খাজনা আদায়

নন্দীগ্রামে পশুর হাটে অতিরিক্ত খাজনা আদায়
ছবি: ফাইল ফটো
ফারুক কামাল ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ১:৫৫ পূর্বাহ্ন Print

বগুড়া: পবিত্র ঈদুল আযহা সামনে রেখে বগুড়ার নন্দীগ্রাম পৌর শহরের ওমরপুর পশুর হাটে অতিরিক্ত খাজনা আদায়কে কেন্দ্র করে জনমনে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। প্রশাসনের নজরদারি না থাকায় হাট ইজারাদার ইচ্ছামতো খাজনা চাপিয়ে দিচ্ছে হাটুরেদের ওপর। এনিয়ে যে কোন মুহূর্তে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, দক্ষিণ বগুড়ার বৃহৎ হিসেবে পুরো উত্তরাঞ্চলে ওমরপুর হাট পরিচিত। এই হাটে গরু ছাগল কেনার জন্য উত্তরাঞ্চলসহ সারা দেশ থেকে ক্রেতা বিক্রেতারা আসে। বছরে কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হলেও হাটের যথেষ্ট কোন উন্নতি হয়নি। বরং দিন দিন সাধারণ মানুষের ভোগান্তি বেড়েই চলেছে।

এদিকে সরকারি নিয়ম অনুযায়ী গরু প্রতি ২০০ টাকা, খাঁসি ৭০ টাকা করে খাজনা নেয়ার কথা। কিন্তু সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে গরু প্রতি নেয়া হচ্ছে ২২০ থেকে ২৫০ টাকা, খাঁসি ৯০ টাকা করে আদায় করছে।

এ ব্যাপারে হাটের একাধিক আদায়কারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সামনে ঈদ এজন্য একটু বেশি নেয়া হচ্ছে। এছাড়া হাট ইজারাদারের নির্দেশ মোতাবেক অতিরিক্ত খাজনা আদায় করা হচ্ছে।

অন্যদিকে গরুর ক্রেতা শহিদুল ইসলাম, আব্দুস সালামসহ অনেকে বলেন, হাট ইজারাদারের আদায়কারীরা জোরপূর্বক আমাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত খাজনা আদায় করছে। এসব বিষয়ে অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়না। যার ফলে ইজারাদার খেয়াল খুঁশি মত খাজনা আদায় করছে। তা আবার খাজনা আদায়ের রশিদ বইয়ে ২০০ টাকা উল্লেখ থাকার পরেও তারা ইচ্ছা মতো ঈদের কথা বলে অতিরিক্ত টাকা নিচ্ছে।

অন্যদিকে, পশুর হাটে অতিরিক্ত খাজনা আদায় করাকে কেন্দ্র করে জনমনে মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। যেকোন মুহূর্তে হাট ইজারাদার ও তার লোকজনদের সাথে অতিরিক্ত খাজনা আদায়কে কেন্দ্র করে বড় ধরনের সংঘর্ষ ঘটতে পারে বলে এমন অভিমত ব্যক্ত করেছেন এলাকাবাসী।

জানতে চাইলে হাট ইজারাদারের গোল্ডেন এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী আলহাজ্ব মোখলেছুর রহমান বলেন, অনেক চেষ্টা করেছি অতিরিক্ত খাজনা বন্ধ করতে। তবে আমার জানা মতে অতিরিক্ত খাজনা আদায় হয়নি।

এ ব্যাপারে পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত প্যানেল মেয়র আখতারুজ্জামান উজ্জল ব্রেকিংনিউজকে বলেন, আতিরিক্ত খাজনা আদায়ের বিষয়ে অভিযোগ পাইনি। হাট ইজারাদারকে বারবার সরকারি নিয়ম মাফিক খাজনা আদায়ের জন্য বলা হয়েছে। তারপরেও অতিরিক্ত খাজনা আদায় করা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২০১০ সালে পৌর সদরের ওমরপুর পশুর হাটে অতিরিক্ত খাজনা আদায় করাকে কেন্দ্র করে ২টি হত্যার ঘটনা ঘটে। হত্যা মামলাটি আজ পর্যন্ত চলমান রয়েছে। তাই সচেতন মহলের দাবি, যেকোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ওমরপুর পশুর হাটে অতিরিক্ত খাজনা আদায় বন্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

ব্রেকিংনিউজ/প্রতিনিধি/এসআই



আপনার মন্তব্য

অনুসন্ধান বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং