Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

শনিবার ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, পূর্বাহ্ন

প্রচ্ছদ » ধর্ম 

‘ধর্মীয় শিক্ষা ছাড়া নারী নির্যাতন বন্ধ সম্ভব নয়’

‘ধর্মীয় শিক্ষা ছাড়া নারী নির্যাতন বন্ধ সম্ভব নয়’
প্রতিবেদক ১২ মার্চ ২০১৬, ১:২৬ অপরাহ্ন Print

ঢাকা: ধর্মীয় শিক্ষা থেকে দূরে সরে আসায় শিশু ও নারী নির্যাতন ও হত্যা বেড়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগের সভাপতি আলহাজ মাওলানা মুহাম্মদ আখতার হুসাইন বুখারী।

শনিবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগ আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, যদি সমাজে ধর্মীয় শিক্ষা বা মূল্যবোধ না থাকে তাহলে নারী, শিশু নির্যাতন ও হত্যা বন্ধ করা সম্ভব নয়।

আখতার হুসাইন বুখারী বলেন, ঢাবির উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে সঠিক মন্তব্য করেছেন। তিনি (আরেফিন) বলেছেন, ধর্ম শিক্ষা থেকে দূরে সরে আসায় শিশু ও নারী নির্যাতন, হত্যা বেড়েছে। এর জন্য দায়ী নীতি-নৈতিকতা এবং ধর্মীয় অনুশাসনের অভাব। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাসহ কোন ক্ষেত্রেই ইসলামী শিক্ষা নেই।

তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের ভেতর থেকে ইসলামী মূল্যবোধ তুলে দেয়া হয়েছে। তাছাড়া ‘সর্বশক্তিমান আল্লাহ পাকের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস’ এটাও সংবিধান থেকে উঠিয়ে দেয়া হয়েছে। যার ফলে শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত সবার মধ্যে ইসলামী মূল্যবোধের অভাব প্রকট আকার ধারণ করেছে। ফলশ্রুতিতে দেশে শিশু হত্যাসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধে লিপ্ত হচ্ছে মানুষ।

তিনি বলেন, এদেশ বিশ্বের ২য় বৃহত্তম মুসলিম দেশ। এদেশের ৯৮ভাগ মানুষ মুসলমান। যে দেশে ১০ লক্ষ মসজিদ রয়েছে, প্রতি জু’মার জামাতে কোটি কোটি লোকের সমাগম হয়, সে দেশে রাষ্ট্রধর্ম হবে ইসলাম, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তাই বাংলাদেশের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম হওয়া স্বাভাবিক এবং রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে ইসলাম বহাল থাকাও স্বাভাবিক।

ওলামা লীগের ওই নেতা আরও বলেন, যারা বলে, রাষ্ট্রের কোন ধর্ম নেই, ধর্ম হলো ব্যক্তির। এছাড়া রাষ্ট্রে একাধিক ধর্মাবলম্বীরা রয়েছে, ফলে কোন নির্দিষ্ট ধর্মকে প্রাধান্য দেয়া যাবে না। যদি তাই হয়, তাহলে একইভাবে রাষ্ট্রের কোন ভাষা থাকতে পারে না। কারণ রাষ্ট্র কখনো কথা বলে না। কথা বলে ব্যক্তি। তাই রাষ্ট্র ভাষা বাংলা কি বাদ দেয়া যাবে? যদি না দেয়া যায়, তাহলে রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে ‘ইসলাম’কে বাদ দেয়া যাবে না।

বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগসহ সমমনা ১৩টি দলের প্রতিনিধি হিসেবে ৭ দফা দাবিও তুলে ধরেন আখতার হুসাইন বুখারী।

দাবিগুলো হলো বাবা-মা কর্তৃক শিশু হত্যা ও নির্যাতন বন্ধ এবং মাদক-দুর্নীতি প্রতিরোধসহ সামাজিক মূল্যবোধের চরম অবক্ষয় রোধে সংবিধানে সর্বশক্তিমান আল্লাহর ওপর আস্থা ও বিশ্বাস পুনঃস্থাপন, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম সংবিধানে বহাল রাখা, মুসলিম স্বার্থ সুরক্ষায় ভারতের প্রতি আহবান, ক্ষতিগ্রস্ত মুসলমানদের স্বার্থ রক্ষায় অবিলম্বে অর্পিত সম্পত্তি আইনের খ তফসিল চালু করা। পাশাপাশি হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের রাজনীতি এদেশে নিষিদ্ধ করা।

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ কাজী মাওলানা মুহাম্মদ আবুল হাসান, সম্মিলিত ইসলামী গবেষণা পরিষদের সভাপতি আলহাজ হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুস সাত্তার, বঙ্গবন্ধু ওলামা পরিষদের সভাপতি শায়েখ আলহাজ মুফতি মাসুম বিল্লাহ নাফেয়ীসহ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

ব্রেকিংনিউজ/এএন/ডিএইচ/এইচএস



আপনার মন্তব্য

ধর্ম বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং