Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, অপরাহ্ন

প্রচ্ছদ » সাক্ষাৎকার 

‘আইসিটি সেক্টরের আয় গার্মেন্টসকেও ছাড়িয়ে যাবে’

‘আইসিটি সেক্টরের আয় গার্মেন্টসকেও ছাড়িয়ে যাবে’
অঞ্জন চন্দ্র দেব ২৬ জানুয়ারী ২০১৬, ৯:১৫ অপরাহ্ন Print

ঢাকা: প্রযুক্তিতে দেশ ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে চলছে প্রযুক্তিতে দেশকে এগিয়ে নিতে নানা কার্যক্রম। চলিত বছর প্রযুক্তিতে দেশে অনেক পরির্বতন হবে। এমন কি গার্মেন্টস থেকে যে পরিমাণ আয় হয়ে থাকে, আগামী দিনে আইসিটি সেক্টর সেটাকে ছাড়িয়ে যাবে। এমনটাই মনে করেন প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মার্কেট মাল্টিপ্ল্যান সেন্টারের সেক্রেটারি জেনারেল সুব্রত সরকার।

কম্পিউটার সেক্টরের সফলতা ও ব্যর্থতা এবং নতুন বছরে কী পরির্বতন ঘটতে পারে ব্রেকিংনিউজের প্রতিবেদক অঞ্জন চন্দ্র দেবের সঙ্গে একান্ত স্বাক্ষাতকারে সুব্রত সরকার এ নিয়ে খোলামেলা কথা বলেছেন। নিম্নে তা তুলে ধরা হলো:-

ব্রেকিংনিউজ: এ মুহূর্তে দেশের কম্পিউটার হার্ডওয়্যার সেক্টরের অবস্থা সম্বন্ধে আপনার মূল্যায়ন কী?

সুব্রত সরকার: কম্পিউটার বিক্রি বাড়েনি। কিন্তু ব্যবসায়ী বেড়ে গেছে। কাস্টমার যে হারে বাড়ার কথা ছিল, সে হারে বাড়েনি।

‘গ্রাহকদের লাইফস্টাইলের সাথে নতুন নতুন গ্যাজেট যুক্ত হয়েছে। আগে কম্পিউটার দরকার হতো। এখন ট্যাব, স্মার্টফোন হলেই চলে। তবে সামগ্রিক চিন্তা করলে এখনো প্রচুর কম্পিউটার বিক্রি হচ্ছে। আগে একজন শিক্ষক বা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাজার থেকে কম্পিউটার কিনতেন। কিন্তু এখন সরকার এক জায়গা থেকে কিনে তাদের হাতে পৌঁছে দিচ্ছে।’

‘সরকারি পর্যায়ে প্রচুর কম্পিউটার কেনা হচ্ছে। ছোট ছোট ব্যবসায়ীরা বিক্রি করতে পারছে না। বড় বড় ব্যবসায়ী লাভবান হচ্ছেন। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ছোট ব্যবসায়ীরা। এক কথায় বাংলাদেশের কম্পিউটার সেক্টর কিছু দিন যাবত খারাপ যাচ্ছে। তবে সব মিলিয়ে ২০১৬ সালটি ভালো হবে বলে আশা করছি।’

ব্রেকিংনিউজ: ২০১৫ সালে এই সেক্টরের ইতিবাচক ও নেতিবাক কী কী ঘটনা ঘটেছে?

সুব্রত সরকার: ২০১৫ সালে হার্ডওয়্যার ব্যবসায় প্রসার ঘটাতে পারিনি। গত বছরের শুরুর দিকে ভালো যায়নি। কিন্তু শেষের দিকে ভালো গেছে। সরকাররি পর্যায়ে শেষের দিকে প্রচুর কম্পিউটার কেনা হয়েছে। ২০১৫ সালে ভ্যাট নিয়ে অনেক ঝামেলায় পড়তে হয়েছে। গত বছর সরকার যে জায়গাগুলোতে কম্পিউটার পৌঁছানোর কথা ছিল, সেটা কিন্তু সরকার করেছে। এর ফলে ২০১৫ সালের সুফল আরও দরকার ছিল।

ব্রেকিংনিউজ: বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৬ সালটি কম্পিউটার হার্ডওয়্যার সেক্টরের জন্য কেমন হবে বলে আপনার ধারণা?

সুব্রত সরকার: ২০১৬ সালটি হার্ডওয়্যার সেক্টরের জন্য অনেক ভালো হবে। মাল্টি মিডিয়ার ক্লাস চালু করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ফলে সকলেই কম্পিউটার কিনবে। ২০১৬ সালে ব্যাপক সাড়া ফেলবে আইসিটিতে।

ব্রেকিংনিউজ: একজন ব্যবসায় উদ্যোক্তা বা প্রযুক্তি নির্বাহী হিসেবে আমাদের দেশে আইসিটি সেক্টরের বিকাশের জন্য আপনার পরামর্শ কী?

সুব্রত সরকার: সরকার যে উদ্যোগ নিয়েছে সেগুলো সফল হলেই দেশে আইসিটি সেক্টরের বিকাশ ঘটবে। ২০১৫ সালে সব ধরনের প্রযুক্তির ব্যবহার ব্যাপক আকারে বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৬ সালে এর সুফল আসবে। গার্মেন্টস থেকে যে পরিমাণ আয় হয়ে থাকে, আগামীতে আইসিটি সেক্টর সেটাকে ছাড়িয়ে যাবে।

ব্রেকিংনিউজ: ডিজিটাল বাংলাদেশ করতে হলে সরকারের আর কী কী উদ্যোগ নেয়া উচিত?

সুব্রত সরকার: ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করতে হলে প্রয়োজন- প্রযুক্তির ক্ষেত্রে ছোট ছোট উদ্যোক্তাদের সহজ শর্তে ঋণ দেয়া। সরকার উদ্যোক্তাদের ব্যাংকিং সুবিধা দিলে তারা আইসিটিতে উন্নয়ন করতে পারবে। শুধু নির্দিষ্ট কিছু ব্যাংক ঋণ না দিয়ে সকল ব্যাংককে লোন দিতে বলতে হবে। উদ্যোক্তা বাড়লে উন্নয়ন সম্ভব হবে।

ব্রেকিংনিউজ: কম্পিউটার ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিযোগিতা সক্ষমতা সম্বন্ধে আপনার মূল্যায়ন কী?

সুব্রত সরকার: একাধিক আমদানিকারক না হলে প্রতিযোগিতা থাকে না। পণ্যের মূল্য নির্ধারণ করা প্রয়োজন। এটা হলে এখন যে সমস্যা হচ্ছে তা থাকবে না।

ব্রেকিংনিউজ: সঠিক দামে মানসম্মত পণ্য পেতে ক্রেতাদের কী করা উচিত?

সুব্রত সরকার: আশা করা যাচ্ছে, খুব তারাতারি MRP (খুচরা মূল্য) সিস্টেম চালু হবে। এর ফলে ক্রেতা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না। একটা কথা ক্রেতাদের মাথায় রাখতে হবে। দাম যাই হোক, আগে ফিচার দেখুন। সঠিক ফিচার দেখে পণ্য কিনলে প্রতারিত হবেন না।

ব্রেকিংনিউজ: আইসিটি পণ্যকে দেশের সর্বস্তরের মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য কী করা উচিত?

সুব্রত সরকার: কেন মানুষ কম্পিউটার ব্যবহার করবে? তা দেশের মানুষকে আগে বুঝাতে হবে। সবার মধ্যে সচেতনতা তৈরি করতে হবে। সরকারকে আরও বেশি করে এই সেক্টরের এগিয়ে আসতে হবে। সরকারি ও বেসরকারি পর্যারয় সবার প্রচেষ্টায় সর্বোস্তরের মানুষের কাছে আইসিটি পণ্য পৌঁছানো সম্ভব।

ব্রেকিংনিউজ: ওয়ারেন্ট নিয়ে এখনো মানুষের মধ্যে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব রয়েই গেছে। এ ব্যাপারের আপনারা কী উদ্যোগ নিলেন?

সুব্রত সরকার: ওয়ারেন্ট ১ বছরের হওয়া উচিত। দেশে কম্পিউটার সমিতি ১ বছর নির্ধারণ করেছে। কিন্তু এখনো কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান ৩ বছর করে দিচ্ছে। আশা করা যাচ্ছে, খুব তাড়াতাড়ি এটা ঠিক হয়ে যাবে।

ব্রেকিংনিউজ: আপনাকে অনেক ধন্যবাদ ব্রেকিংনিউজকে সময় দেয়ার জন্য।

সুব্রত সরকার: আপনাকে এবং ব্রেকিংনিউজকেও অনেক ধন্যবাদ।

ব্রেকিংনিউজ/এসিডিটি/এইচএস/এমই



আপনার মন্তব্য

সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং