Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, অপরাহ্ন

প্রচ্ছদ » সাক্ষাৎকার 

‘শিল্পীকে একজন ভালো মানুষ হতে হবে’

‘শিল্পীকে একজন ভালো মানুষ হতে হবে’
সাক্ষাৎকার ডেস্ক ১১ জুন ২০১৫, ১:০৯ অপরাহ্ন Print

ঢাকা: সুজাত শিমুল সময়ের আলোচিত তরুণ অভিনেতা। অভিনয়ের যাত্রা শুরু মঞ্চ নাটকে। সে যাত্রা সমৃদ্ধ হয়েছে টেলিভিশন, বিজ্ঞাপনচিত্র, খণ্ড নাটক, ধারাবাহিক নাটক ও চলচ্চিত্রে। সম্প্রতি তৌকির আহমেদের পরিচালনায় ‘অজ্ঞাতনামা’ সিনেমার শুটিং শেষ করেছেন। এক পড়ন্ত বিকালে তার সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় উঠে আসে মিডিয়ার বিভিন্ন দিক। তার সঙ্গে কথা বলেছেন ব্রেকিংনিউজের ভারপ্রাপ্ত নিউজ রুম মডারেটর সালাহ উদ্দিন মাহমুদ

ব্রেকিংনিউজ: কেমন আছেন?
সুজাত শিমুল: জ্বি, আপনাদের দোয়ায় ভালো আছি।

ব্রেকিংনিউজ: বর্তমানে কাজের ব্যস্ততা কেমন?
সুজাত শিমুল: ব্যস্ততা মোটামুটি খারাপ নয়। সম্প্রতি রাজবাড়ীর পাংশায় তৌকির আহমেদের ‘অজ্ঞাতনামা’ সিনেমার কাজ শেষ করে আসলাম। এছাড়া চট্টগ্রাম ও কাপ্তাইয়ে শেষ করে আসলাম ওয়াহিদ তারেকের ‘আলগা নোঙর’র কাজ। আর শফিকুর রহমান শান্তনু ও অঞ্জন আইচের ঈদের নাটকের শুটিং চলছে। এই মুহূর্তে অঞ্জন আইচের ‘সাপ-লুডু’, রেদওয়ান রনির ‘ঝালমুড়ি’, মামুনুর রশিদের ‘অক্ষয়’, কমল চৌধুরীর ‘বাই ফোকাল’ ও ইমরাউল রাফাতের ‘কলিংবেল’ প্রচারিত হচ্ছে।

ব্রেকিংনিউজ: মিডিয়ার আগমনের গোড়ার কথাটা শুনবো-
সুজাত শিমুল: শুরুটা অবশ্যই মঞ্চে। ২০০২ সালে চট্টগ্রামের ‘নাট্যাধার থিয়েটার’র মাধ্যমে যাত্রা শুরু। মঞ্চে প্রথম কাজ ‘শিখণ্ডী কথা’। এ নাটকের ‘শ্যামা’ চরিত্রের মধ্য দিয়ে মঞ্চে অভিষেক হয়। এরপর ‘কাল বোধন’ নাটকে কাজ করেছি। ঢাকার ‘ব্যতিক্রম’ নাট্যদলে সৈয়দ মহিদুল ইসলামের ‘অবশেষ’ ও চন্দন সেনের ‘ফিরে দেখা’ নাটকেও কাজ করেছি। এরপর ২০০৫ সালে ঢাকার ‘আরণ্যক’ থিয়েটারে যুক্ত হই। আরণ্যকের হয়ে ‘এবং বিদ্যাসাগর’, ‘রাঢ়াঙ’, ‘আগুনের ঢালপালা’, ইডিপাস অবলম্বনে ‘ইতি ইয়কাস্তে’ ও ‘পুতুল কথন’ নাটকে অভিনয় করেছি। সর্বশেষ করেছি ‘ভঙ্গবঙ্গ’। আর টেলিভিশনে মামুনুর রশিদের হাত ধরে অভিনয় শুরু। ২০০৮-০৯ সালে তার ‘চন্দ্র ফেরত’ নাটকের মধ্য দিয়ে টেলিভিশন নাটকে যাত্রা শুরু। পাশপাশি টেলিফোন কোম্পানি রবি’র একটা বিজ্ঞাপনচিত্র করেছি।

ব্রেকিংনিউজ: মঞ্চ এবং টেলিভিশন- কোনটাকে প্রাধান্য দিবেন?
সুজাত শিমুল: মূলত আমি দুটো মাধ্যমকেই প্রাধান্য দিতে চাই। তার কারণ হচ্ছে, মঞ্চটা হচ্ছে শেখার জায়গা। আর পেশাগত কারণে টেলিভিশনেরও গুরুত্ব রয়েছে। তবে এক্ষেত্রে মঞ্চের সঙ্গে শৃঙ্খলা বিধানে একটা সমস্যা হয়। যেহেতু মঞ্চ ও টেলিভিশন আলাদা দুটি মাধ্যম। তারপরও ভারসাম্য রক্ষা করতে হয়। তবে এ সংকটটা আপেক্ষিক। আমি দুটো মাধ্যমেই নিজেকে শিক্ষানবিশ মনে করি। ফলে প্রতিনিয়তই আমার অভিনয়টা ঋদ্ধ ও তীক্ষ্ম হচ্ছে।

ব্রেকিংনিউজ: শোনা যাচ্ছে মিডিয়ায় গল্প, নির্মাতা ও অভিনেতা সংকট চলছে। এ ব্যাপারে আপনার অভিমত কী?
সুজাত শিমুল: সব সময়ই এক ধরনের সংকট তৈরি হচ্ছে। মাঝে মাঝে ভিড়ের গল্প ও ভিড়ের অভিনেতার উত্থান ঘটে। ফলে এ সমস্যা আপেক্ষিক। এ ধরনের আপেক্ষিকতার সঙ্গে একজন অভিনেতার কখনোই গা ভাসানো উচিত নয়। আর নিজেকে স্বতন্ত্র করতে গেলে সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। তবে এ থেকে উত্তোরণও সম্ভব। সেজন্য ধৈর্য ও বুদ্ধিমত্তার প্রয়োজন। সবচেয়ে বড় সংকট হচ্ছে তাড়াহুড়া। এটা শিল্প ও শিল্পীর জন্য ক্ষতিকর। এক্ষেত্রে সবাইকে সতর্ক ও যত্নশীল হতে হবে। তা না হলে শিল্পের মাহাত্ম্য নষ্ট হবে। সে প্রভাব প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে সবার ওপরে পড়বে। সবাইকে সচেতনতার সঙ্গে যুগোপযোগী ও সুদূরপ্রসারী চিন্তা করা উচিত।

ব্রেকিংনিউজ: একজন ভালো অভিনেতার বৈশিষ্ট্য কী হওয়া উচিত?
সুজাত শিমুল: স্তানিস্লাভস্কি’র একটা কথা আছে- ‘An Actor must be necessarily a good man.’- অর্থাৎ ‘শিল্পীকে একজন ভালো মানুষ হতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই।’ শিল্পীর আরেকটি জিনিস খুব জরুরি- সেটা হচ্ছে শৃঙ্খলা। তিনি এও বলেছেন, ‘An Actor is subjected to an iron discipline.’ এছাড়া শিল্পীর দৈনন্দিন পড়াশুনাটাও অত্যাবশ্যক।

ব্রেকিংনিউজ: বর্তমান সময়ের চলচ্চিত্র নিয়ে আপনার ভাবনা-
সুজাত শিমুল: চলচ্চিত্রের একটা ভালো সময় এসেছে। এসময়টি আরো সুখময় হবে যদি সৃজনের এ ধারাকে আমরা আরো শক্ত ও যত্ন করে ধরে রাখতে পারি। গল্প বলার পাশাপাশি দৃশ্যায়নের সমান্তরাল নৈপূণ্যটি প্রদর্শনের ব্যাপারে নির্মাতাদের আরেকটিু যত্নবান হওয়া উচিত। কেননা নিয়মিত বিরতিতে দর্শককে হলমুখি করার মতো চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে হবে।

ব্রেকিংনিউজ: একজন তরুণ হিসেবে তরুণদের ব্যাপারে কী বলবেন?
সুজাত শিমুল: তরুণদের প্রতি প্রথমত দাবি হচ্ছে- শিল্পটির প্রতি ভালোবাসা, দায়বদ্ধতা ও শ্রমনিষ্ঠা থাকতে হবে। একজন অভিনেতার যে গুণাবলী সেটিকে সবার উপরে স্থান দিতে হবে। কেননা শিল্পীর ব্যক্তিগত জীবনের কর্মকাণ্ড তার শিল্পে প্রভাব বিস্তার করে।

ব্রেকিংনিউজ: অভিনয়ে কাকে ভালো লাগে বা অনুসরণ করেন?
সুজাত শিমুল: অনেককেই। অনেক প্রবীণ- যাদের অভিনয় ক্ষমতা অনেক তীক্ষ্ম। যেমন- মামুনুর রশিদ, আব্দুল্লাহ আল মামুন, হুমায়ুন ফরিদী, রাইসুল ইসলাম আসাদ, ফেরদৌসী মজুমদার ও নাজমা আনোয়ার। তাদের অভিনয় আমাকে খুব ভাবায়। তাদের অভিনয়শৈলী আমাকে অনুপ্রাণিত করে। কখনো কখনো মনে হয়, তাদের জন্ম যদি প্রাচ্য কিংবা পাশ্চাত্যের শিল্পাঙ্গনে হতো, তাহলে হয়ত তারা শুধু দেশ না সারাবিশ্বের কাছে অনুপ্রেরণার পাত্র হয়ে থাকতেন। বিশ্ব দরবারে তাদের অবস্থান আরও শক্তিশালী হতো।

ব্রেকিংনিউজ: আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।
সুজাত শিমুল: আপনাকে ও ব্রেকিংনিউজকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

ব্রেকিংনিউজ/এসইউএম



আপনার মন্তব্য

সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং