Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, অপরাহ্ন

প্রচ্ছদ » সাক্ষাৎকার 

‘দেশের জন্য কিছু করতে চাই’

‘দেশের জন্য কিছু করতে চাই’
সাক্ষাৎকার ডেস্ক ১৫ এপ্রিল ২০১৫, ৭:৪৩ অপরাহ্ন Print

ঢাকা: আরিফ রহমান শিবলি একজন সফল তরুণ অনুষ্ঠান নির্মাতা, বার্তা প্রযোজক ও নাট্যকার। এছাড়াও গত ৭ বছর ধরে কাজ করছেন অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের উন্নত চিকিৎসা সহযোগিতা নিয়ে, রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় ঝাঁপিয়ে পড়েছেন একজন উদ্ধারকর্মী হিসেবে। এসব নিয়ে কথা হয় তার সাথে। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন ব্রেকিংনিউজের বিনোদন প্রতিবেদক।

ব্রেকিংনিউজ: অনুষ্ঠান নির্মাণ থেকে উধাও হলেন কেন?
আরিফ: হা-হা, আসলেই! ছোট থেকে কখনোই আমি স্থির ছিলাম না। তাই শুরুতে অনুষ্ঠান নির্মাতা হিসেবে পরিচয় পেলেও পরবর্তীতে বার্তা প্রযোজক হিসেবে কাজ করি। এখন ভাবছি অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের উন্নত চিকিৎসা, কর্মসংস্থান নিয়ে জীবনের বাকিটা সময় কাজ করবো।

ব্রেকিংনিউজ: আপনিতো বাংলাদেশে প্রথম ইংরেজি ভাষায় সংগীতানুষ্ঠান নির্মাণ করেছিলেন। পরবর্তীতে আপনার সাফল্য দেখে অনেকেই এখন ইংরেজি ভাষায় অনুষ্ঠান বানাচ্ছেন। এ ব্যাপারে আপনার অনুভূতি কেমন?
আরিফ: আসলে আমার কাছে অর্ধ ইংরেজি অর্ধ বাংলা কখনোই ভালো লাগত না! তাই অনুষ্ঠানে পরিবর্তন আনার জন্যই আমি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। কিন্তু আমার দেখাদেখি অনেকেই শুরু করছে দেখে খুব ভালো লাগছে।

ব্রেকিংনিউজ: আগামী ঈদুল ফিতরে কি দেশের তরুণ দর্শকদের জন্য আপনার নির্মিত জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘ইংলিশ রক টাউন’ তৈরি করবেন?
আরিফ: আমি সবসময়ই অনুষ্ঠান বিভাগে পরিবর্তন আনার চেষ্টা করেছি বাংলাদেশের তরুণ দর্শকদের জন্য। খুব ভালো লাগে! গত ৪/৫ বছর প্রতি ঈদে আমার অনুষ্ঠান ‘ইংলিশ রক টাউন’ সেরা ১০ এ স্থান করে নিয়েছে। তাই এবার নতুন কিছু করার চিন্তা করছি।

ব্রেকিংনিউজ: এখন কি নিয়ে চলছে আপনার কাজ?
আরিফ: অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের উন্নত চিকিৎসা, হাত-পা হারানো শিক্ষার্থী, পেট্রলবোমায় দগ্ধ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য চালু করতে যাচ্ছি ‘AILING STUDENTS TREATMENT HELPING FOUNDATION, BANGLADESH’।

ব্রেকিংনিউজ: আপনি কি এই বিষয়ে একাই কাজ করছেন?
আরিফ: আগে আমি এবং আমার ভালবাসা ‘মরহুম সুরাইয়া দ্রিপ্তি’ ফান্ড উঠিয়ে সহযোগিতা করতাম অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের। প্রিয় মানুষটি ২০০৭ সালে ওপারে চলে যাওয়ার পর আমি নিজে চেষ্টা করে হাত বাড়িয়ে দিতাম। কিন্তু সময়ের পরিবর্তনে মিডিয়া, চিকিৎসক, সংসদ সদস্য, এবং বাংলাদেশ সরকারের ঊর্ধ্বতন কিছু কর্মকর্তা আমাদের সহযোগিতা করছেন সংস্থাটি করার জন্য। তবে আমি এই ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিরোধী দলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাৎ করতে চাই। কেননা রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ এই শিক্ষার্থীদের জন্যই করা এ বড় প্রজেক্ট। আমি চাই প্রতিটি নাগরিক আমাদের পাশে থাকুক।

ব্রেকিংনিউজ: ফ্রান্সে যাচ্ছেন কবে?
আরিফ: আসলে! বেঁচে থাকার এই জীবনে আমার চাহিদা খুবই সামান্য। তাই বাবা-মা যতদিন বেঁচে আছেন; ততদিন আমার ফ্রান্সে স্থায়ীভাবে থাকার ইচ্ছে নেই। তবে ভবিষ্যৎ জীবনসঙ্গিনীকে নিয়ে বিশ্ব ভ্রমণ করতে চাই।

ব্রেকিংনিউজ: কেমন জীবনসঙ্গিনী পছন্দ?
আরিফ: অবশ্যই! মানুষকে সহযোগিতা করার মতন উদ্যমী হতে হবে। যেহেতু ভবিষ্যতে আমার হাসপাতাল, মেডিক্যাল কলেজ করার খুবই ইচ্ছে। তাই আমার পরিবারের সদস্যরা চান ভবিষ্যৎ সঙ্গিনী চিকিৎসক হোক। কিন্তু আমি কখনোই মানুষের পেশাকে বড় করে দেখি না। আমার একটাই চাওয়া- তিনি যেন ভালো মানুষ হন।

ব্রেকিংনিউজ: বিয়ে করছেন কবে?
আরিফ: হা-হা-হা! মাত্রতো জীবনটা শুরু। তবে আগামী ৪/৫ বছরের আগে এসব নিয়ে ভাবতে চাই না। আমি বিয়ের ব্যাপারে আমার ছোট মামা ‘হাসান মাহমুদ’র মতবাদেই বিশ্বাসী। তবে চলার পথে যদি কাউকে ভালো লাগে তবে সবাইকে জানিয়ে বড় অনুষ্ঠান করেই করবো।

ব্রেকিংনিউজ: সমাজসেবার পাশাপাশি রাজনীতিতে আসার ইচ্ছে আছে কি?
আরিফ: আমার এই ব্যাপারে কোনও আগ্রহ নেই। তবে আমাদের ২ ভাইয়ের ইচ্ছে নোয়াখালীর মেয়র নির্বাচনে বাবাকে দিয়ে নির্বাচন করানোর।

ব্রেকিংনিউজ: ব্রেকিংনিউজের পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ।
আরিফ: ব্রেকিংনিউজকেও অসংখ্য ধন্যবাদ।

ব্রেকিংনিউজ/এসইউএম



আপনার মন্তব্য

সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং