Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

সোমবার ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, পূর্বাহ্ন

প্রচ্ছদ » সাক্ষাৎকার 

দেশের অর্থনীতিতে অরাজকতা চলছে

দেশের অর্থনীতিতে অরাজকতা চলছে
জোনায়েদ মানসুর ০৭ ডিসেম্বর ২০১৪, ৩:৫২ অপরাহ্ন Print

ঢাকা: একটি ব্যাংকের বড় কর্মকর্তা ছিলেন তিনি। কিন্তু তার সেই পরিচয় ঢাকা পড়ে গেছে রাজনৈতিক পরিচয়ের আড়ালে। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী যে এক সময় ছিলেন রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের চেয়ারম্যান তা অনেকেরই অজানা। সম্প্রতি এক সফরে রাজশাহীতে তার সাথে দেশের অর্থনীতি নিয়ে কথা হয়।

রিজভী বলেন, দেশের অর্থনীতির অবস্থা যে আশাঙ্কাজনক তা গণমাধ্যমে চোখ বুলালেই লক্ষ্য করা যায়। দেশের অর্থনীতিতে অরাজকতা চলছে। ব্যাংকিং খাতে তা সবচেয়ে বেশি। কারণ এর সাথে সংশ্লিষ্ট সরকারের উচ্চ পর্যায়ের লোকজন, হয় তারা এমপির আত্মীয়স্বজন, নয়তো নিজেরাই।

তিনি বলেন, ব্যাংক ঋণের ক্ষেত্রে অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে উদ্যোক্তা বাছাই করতে হবে।

এসব নানা বিষয় নিয়ে শুক্রবার সকালে রাজশাহীর পর্যটন মোটেলে রুহুল কবির রিজভীর সঙ্গে কথা হয় ব্রেকিংনিউজের অর্থনীতি প্রতিবেদকের। তারই কিছু অংশ ব্রেকিংনিউজের পাঠকের জন্যে তুলে ধরা হলো:

রাজশাহীতে কেন এলেন?
রুহুল কবির রিজভী: রাজশাহী আমার পুরানো জায়গা। এখানে ছাত্র জীবন পার হয়েছে। ব্যক্তিগত ও পারিবারিক কাজে এখানে মাঝে মধ্যে আমাকে আসতে হয়।

রাজশাহী আপনার পুরানো জায়গা মানে কি, যদি বিস্তারিত বলতেন?
রুহুল কবির রিজভী: আমি রাজনীতিবিদ। হ্যাঁ, আমি এখানে ছাত্র রাজনীতি করেছি। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ সংক্ষেপে রাকসু নামে পরিচিত। রাকসুতে ১৯৮৯ সালে আমি ভিপি ছিলাম।

দেশের অর্থনীতির অবস্থা কেমন বলে আপনি মনে করেন?
রুহুল কবির রিজভী: দেশের অর্থনীতির অবস্থা তেমন ভালো না, আশাঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে। এটা আমার কথা নয়, গণমাধ্যমে চোখ বুলালেই তা লক্ষ্য করা যায়। দেশের অর্থনীতিতে অরাজকতা চলছে। তা ব্যাংকিং খাতে সবচেয়ে বেশি।

যতটুকু জানতে পেরেছি আপনি রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের চেয়ারম্যান ছিলেন।
রুহুল কবির রিজভী: হ্যাঁ, আপনি ঠিকই জেনেছেন। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের চেয়ারম্যান ছিলাম আমি।

ব্যাংকের বিনিয়োগে কোন কোন বিষয় দেখা উচিত?
রুহুল কবির রিজভী: আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি ব্যাংকের বিনিয়োগে উদ্যোক্তা বাছাই হচ্ছে জরুরি বিষয়। ব্যাংকগুলোর অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে বিনিয়োগ করা উচিত।

যখন ব্যাংকে চেয়ারম্যান ছিলেন তখন কি কি সমস্যায় পড়তে হয়েছে? ব্যাংকে রাজনৈতিক প্রভাব থাকে কি?

রুহুল কবির রিজভী: ব্যাংকে রাজনৈতিক প্রভাব থাকে। সম্প্রতি ব্যাংকিং খাতে যে ঘটনাগুলো ঘটছে তা তো আপনারাই লিখেছেন। তা থেকেই জানতে পাচ্ছি। বেসরকারি ব্যাংকের চেয়ে সরকারি ব্যাংকগুলোতে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা বেশি থাকে। এর ফলে সরকারি ব্যাংকগুলোতে ঋণ খেলাপী বেশি হয়। যারা ঋণ পায় বা ঋণ নেয় তারা সরকারের উচ্চ পর্যায়ের লোকজন, হয় তারা এমপির আত্মীয়স্বজন, বা এমপিরা নিজেরাই ঋণ নিয়ে থাকে। এখানেও বলব উদ্যোক্তা বাছাই না করলে ঋণ খেলাপী তো হবেই।

ঋণ খেলাপী থেকে বেরিয়ে আসতে কি করা প্রয়োজন?
রুহুল কবির রিজভী: ব্যাংকে ঋণ খেলাপী থেকেই যাচ্ছে। এটা থেকে বেরিয়ে আসতে হলে সমন্বিত ড্রাইভ দিতে হবে। এটা নিয়ে কোনো সরকারই ওভাবে কিছু করতে পারে না। আমাদের সময় যথেষ্ট চেস্টা করা হয়েছিল। রাইটআপ করা হয়েছিল। এর বিরুদ্ধে আন্তরিক থাকতে হবে অথরিটি বোর্ডকে, স্বদিচ্ছা থাকতে হবে।

অর্থনীতির উন্নয়ন করতে হলে কি কি প্রয়োজন?
রুহুল কবির রিজভী: এর জন্যে গ্রামীণ অর্থনীতিকে জোরদার করতে হবে। বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ দরকার। তরুণদের চাকরিতে উৎসাহ না দিয়ে উদ্যোক্তা তৈরিতে সহযোগিতা করতে হবে।

ব্রেকিংনিউজ/জেএম/এফই



আপনার মন্তব্য

সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং