Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, পূর্বাহ্ন

প্রচ্ছদ » মজার খবর 

ভালবাসা দিবসে প্রকাশ্যে চুমু খাওয়ার আহ্বান ফেসবুকে

ভালবাসা দিবসে প্রকাশ্যে চুমু খাওয়ার আহ্বান ফেসবুকে
অঞ্জন চন্দ্র দেব ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৬, ১:২৩ অপরাহ্ন Print

ঢাকা: ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালবাসা দিবস। ২৬৯ সাল ইতালির রোম নগরীতে সেন্ট ভ্যালেইটাইন’স নামে একজন খৃষ্টান পাদ্রী ও চিকিৎসক ছিলেন। ধর্ম প্রচারের অভিযোগে তৎকালীন রোমান সম্রাট দ্বিতীয় ক্রাডিয়াস তাকে বন্দি করেন। কারণ তখন রোমান সাম্রাজ্যে খৃষ্টান ধর্ম প্রচার নিষিদ্ধ ছিল। বন্দি অবস্থায় তিনি জনৈক কারারক্ষীর দৃষ্টহীন মেয়েকে চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ করে তোলেন। এতে সেন্ট ভ্যালেইটাইনের জনপ্রিয়তার প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে রাজা তাকে মৃত্যুদণ্ড দেন। সেই দিন ১৪ ফেব্রুয়ারি ছিল। তারপর থেক ৪৯৬ সালে পোপ সেন্ট জেলাসিউও ১ম জুলিয়াস ভ্যালেইটাইন'স স্মরণে ১৪ ফেব্রুয়ারিকে ভ্যালেন্টাইন' দিবস ঘোষণা করেন।

ভ্যালেইটাইন’স এর ভালোবাসা ছিল মানুষের প্রতি। বর্তমান সময়ের ভালবাসাটা মোড় নিয়েছে অন্যদিকে। ভালবাসা দিবস বলতে বুঝায় প্রেমিক-প্রেমিকার জন্য। ঐ দিন বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চলে প্রেমিক-প্রেমিকার অবাধে চলাফেরা। শুধু তাই নয় এই দিনে চলে অশ্লিল কর্মকাণ্ড।

এই দিনে প্রেমিক-প্রেমিকাদের মধ্যে যেমন আনন্দের সীমা থাকে না, তেমনি যারা প্রেম করে না বা করতে পারে না তাদেরও চলে বিভিন্ন প্রতিবাদ কর্মসূচি।

বিশেষ দিনগুলোর জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চলে প্রচার-প্রচারণা। খোলা হয় বিভিন্ন নামে পেইজ বা গ্রুপ। ভালাবাসা দিবস উপলক্ষে ফেসবুকেও খোলা হয়েছে বিভিন্ন ইভেন্ট পেজ। তারমধ্যে মানুষের নজর কেড়েছে ‘ভালোবাসা দিবসে পুলিশি পাহারায় প্রকাশ্যে চুমু খাব’ নামের একটি ইভেন্ট পেইজ। এমন অদ্ভুত পেজ ফেসবুকে আলোচনার ঝড় তুলেছে।

পেইজটির অ্যডমিন থেকে বলা হয়ছে, ভালোবাসা দিবসকে কেন্দ্র করে নাকি কড়া পুলিশি নজরদারির ব্যবস্থা করা হয়েছে। ভারতে নাকি প্রকাশ্যে চুমু খেলে পুলিশ গ্রেফতারও করবে। প্রতি বছরই এই দিনকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের পুলিশ বিভিন্ন রকম হয়রানি করে। ধানমন্ডি লেকে, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে হাত ধরে হাটাও বিপজ্জনক হয়ে দাড়ায়। এর প্রতিবাদে সকল জুটিকে আহ্বান জানানো যাচ্ছে যে, স্ব স্ব প্রেমিক-প্রেমিকাকে প্রকাশ্যে চুমু দেয়ার।

৫ হাজার মানুষকে ইভেন্টে আহ্বান জানানো হয়, প্রায় ৩ হাজার মানুষ এর পক্ষে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এর বিরুদ্ধে অনেকই আবার তীব্র ক্ষোভ জানিয়েছেন।

আরিফুল ইসলাম নামের একজন প্রতিবাদ জানান। তিনি কমেন্ট করেন, ‘আরে ভাই, ইভেন্টের ভেতরের পোস্টগুলা তো আরও জঘন্য, মনে হয় বাধ্যতামূলকভাবে বলছে চুমু না খাইলে ফাঁসি হবে।’

জাকির হোসেন মাসুদ নামের একজন প্রতিবাদ জানিয়ে কমেন্ট করেন, ‘মরিচের গুড়া দিয়া ডলা দেয়া উচিত। আর এদের ছবি তুলে আর্কাইভ করে নেটে দেয়া উচিত। যেন সবাই চিনতে পারে। পরবর্তীতে কোন ছেলে মেয়ের বিয়ের সময় সেটা থেকে মিলানো যাবে।’

আলিফ শাহাদাত নাবিল নামের একজন কমেন্ট করে জানায়, ‘ধর্মের কথা না হয় বাদ-ই দিলাম। যে কারণে আমরা মানুষ, তা বিশ্লেষণ করুন। আমাদের বাঙালির সম্মান আছে। পশুরা রাস্তাঘাটে এসব করে। মানুষরা নয়। একজন প্রকৃত বাঙালি নয়। মানুষের বৈশিষ্ট্য জানুন। শুধু শারীরিক নয়, মানসিক বিষয়েও জানুন, সব জানুন। ব্যক্তিগত বলতেও একটা শব্দ আছে।’

শিমুল নামের এক শিক্ষার্থী কমেন্ট করেন, ‘বাংলাদেশে জারজ সন্তানের পরিমাণ কত সেটা বের করতে আর কষ্ট করতে হবে না, এই ইভেন্টে থেকে খুব সহজেই জানা যাবে।’

ব্রেকিংনিউজ/এসিডিটি/এটিআর/এইচএস



আপনার মন্তব্য

মজার খবর বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং