Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, অপরাহ্ন

প্রচ্ছদ » মুক্তমত 

৩০ লক্ষ শহীদ: ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজের থিউরি

৩০ লক্ষ শহীদ: ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজের থিউরি
ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ০৩ জানুয়ারী ২০১৬, ৯:৫৬ পূর্বাহ্ন Print

সম্প্রতি, একাত্তরের ত্রিশ লাখ শহীদের সংখ্যা নিয়ে অঙ্ক কষে যাচ্ছেন দেশের একদল অঙ্কবিদ। অন্যদিকে একদল নিরপেক্ষ গবেষক এই সংখ্যা নিয়ে বস্তুনিষ্ঠ গবেষণার দাবি তুলেছেন। মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তির রাজনীতিবিদরা নিজেদের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে যত না সংশয় প্রকাশ করছেন, তার চাইতে বেশি সংশয় প্রকাশ করছেন এই ত্রিশ লাখ সংখ্যাটি নিয়ে।

আবার জনৈক ‘দেশ-জামাই’ ব্লগার ত্রিশ লাখ শহীদের সংখ্যার খেলা নিয়ে ‘ব্লগাইতে ব্লগাইতে’ নিজের দেশ, জাতি এবং ‘ধর্ম’ ত্যাগ করে এখন পাগলপ্রায়। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী সাকা চৌধুরীতো দেশ, জাতি এবং গুরুত্বপূর্ণভাবে চট্টগ্রামবাসীর কাছে মৃত্যুর আগে শেষ ইচ্ছে হিসেবে ত্রিশ লাখ শহীদের ডেথ সার্টিফিকেটগুলো দেখতে চেয়েছিলেন। আর হাজার মাইল দূরের পাকিস্তান রাষ্ট্রটি ত্রিশ লাখ শহীদ তো দূরের কথা, একজনও শহীদ হয় নাই বলে ফতোয়া দিয়ে বসে আছে।


যা হোক, আসুন আমরা সকলে মিলে ত্রিশ লাখ শহীদের অংকটি মিলিয়ে নেই। যারা অঙ্কটি মেলাতে পারেন না তাদের প্রধান তিনটি যুক্তি হলো: (১) ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশে ত্রিশ লাখ বাঙালি শহীদ হন নাই; (২) ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযদ্ধের সময় বাংলাদেশে ত্রিশ লাখ বাঙালি শহীদ হতে পারেন না; এবং (৩) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারিতে ভাষণ দেবার সময় শহীদের সংখ্যা ভুলবশত অতিরঞ্জিত করে ত্রিশ লাখ বলে ফেলেছেন।

প্রথম যুক্তির খণ্ডন

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযদ্ধের সময় বাংলাদেশে ত্রিশ লাখ শহীদ হয়নি বলে যারা দাবি করেন তাদের জ্ঞানের অজ্ঞতা দেখে যে কেউ লজ্জা পাবেন। কারণ: (ক) ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের হানাদার বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসরদের লক্ষ্যই ছিল ত্রিশ লাখ বাঙালিকে হত্যা করা।

পাকিস্তানি আর্মিদের এক বৈঠকে ইয়াহিয়া খান বলেছিলেন, “Kill 3 million of them and the rest will eat out of our hands.” এখানে সুস্পষ্ট যে পাকিস্তানি বাহিনীর প্রথম থেকেই লক্ষ্য ছিল অন্তত ত্রিশ লাখ বাঙালিকে হত্যা করা। [তথ্যসূত্র : (১) Robert Payne, Massacre: The Tragedy of Bangladesh and the Phenomenon of Mass Slaughter Throughout History (1972), পৃষ্ঠা-৫০;] (২) Debashish Roy Chowdhury, ‘Indians are Bastard Any way’, The Asia Times, 23 June, 2005]

(খ) পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা বিষয়ক ওয়েবসাইট defence.pk-এ প্রকাশিত “The Radical Truth: Teaching MPACUK the Forgotten Chapter of Pakistan’s History” শীর্ষক নিবন্ধের তৃতীয় অনুচ্ছেদে উল্লেখ করা হয়েছে যে, “In 1971, over 9 months, President Yahiya Khan and his military commanders with the aid of local collaborators committed mass atrocities on unarmed civilians, killed an estimated three million people...”

(গ) ১৯৭১ সালের ২১ শে ডিসেম্বর দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকার সম্পাদকীয়তে লেখা হয়, “হানাদার দুশমন বাহিনী বাংলাদেশে প্রায় ত্রিশ লাখ নিরীহ লোক ও দু’শতাধিক বুদ্ধিজীবীকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে”।

(ঘ) ১৯৭২ সালের ৫ই জানুয়ারি ঢাকার পত্রিকা The Daily Observer -এর শিরোনাম ছিল “Pak Army Killed Over 30 Lakh People”। একই দিন The Morning News এর শিরোনাম ছিল “Over 30 Lakh Killed by Pak Force”।

(ঙ) রাশিয়ার কমিউনিস্ট পার্টির মুখপত্র ‘প্রাভদা’ পত্রিকা ১৯৭১ সালের ডিসেম্বর মাসেই বাংলাদেশে ত্রিশ লাখ শহীদের বিষয়টি তাদের পত্রিকায় প্রকাশ করেছিল। এই প্রাভদা পত্রিকাটির ইংরেজি সংস্করণে উল্লেখ করা হয়েছিল, “Over 30 lakh persons were killed throughout Bangladesh by the Pakisthani occupation forces during the last nine months”। প্রাভদা পত্রিকাটির ১৯৭২ সালের ৫ জানুয়ারির বাংলা সংস্করণে শিরোনাম হয় দখলদার বাহিনী বাংলাদেশে ত্রিশ লক্ষাধিক মানুষ হত্যা করেছে”।

(চ) ১৯৭২ সালের ৯ জানুয়ারি দৈনিক বাংলা’র “হুঁশিয়ার আন্তর্জাতিক চক্রান্ত” শিরোনাম খবরে লেখা হয় দখলদার পাকিস্তানি বাহিনী বাংলাদেশে যে তাণ্ডব চালিয়েছে তাতে ৩৫ লক্ষাধিক বাঙালি প্রাণ হারিয়েছে।

(ছ) গবেষক রওনাক জাহানও তার গবেষণায় ত্রিশ লাখ শহীদের সংখ্যা খুঁজে পেয়েছেন। [তথ্যসূত্র: “Genocide in Bangladesh” in Samuel Totten, William S. Parsons and Israel W. Charny (ed), Century of Genocide: Critical Essays and Eyewitness Accounts (2nd ed, Routledge, 1995) পৃষ্ঠা-২৯৫।]

দ্বিতীয় যুক্তির খণ্ডন
যারা মনে করেন ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ত্রিশ লাখ মানুষ শহীদ হওয়া কোনো মতেই সম্ভব না, তারা আসলে অঙ্কে বড় কাঁচা। সহজ-সরল অঙ্কের ফর্মুলা না বোঝার কারণেই তাদের এই বাচালতা। কারণ,

(ক) Rudolph Joseph Rummel গণহত্যার পরিসংখ্যান কিভাবে করতে হয় তার একটি গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন। পদ্ধতিটি তাঁর রচিত “Estimating Democide: Methods and Procedures” শীর্ষক নিবন্ধে বিধৃত হয়েছে। তাঁর রচিত Statistics of Democide (1998) গ্রন্থের অষ্টম অধ্যায়ে তিনি অন্তর্ভুক্ত করেছেন “Statistics of Pakistan Democide, Estimates Calculation and sources” শীর্ষক নিবন্ধটি। এই নিবন্ধে Rummel তাঁর আবিষ্কৃত গণহত্যা পরিসংখ্যান পদ্ধতি অনুসারে দেখিয়েছেন যে, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশে ৩০ লাখ ৩ হাজার লোক প্রাণ হারিয়েছেন।

(খ) ১৯৮১ সালের UNHRC (ইউনাইটেড ন্যাশনস হিউম্যান রাইটস কমিশন) রিপোর্ট অনুযায়ী মানব সভ্যতার ইতিহাসে যতগুলো গণহত্যা সংঘটিত হয়েছে তার মধ্যে অল্প সময়ের মধ্যে সব থেকে বেশি সংখ্যক মানুষকে হত্যা করা হয়েছে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে।

প্রতিদিন গড়ে ৬ হাজার থেকে ১২ হাজার মানুষ তখন খুন হয়েছিল বাংলাদেশে। গণহত্যার ইতিহাসে এটাই সর্বোচ্চ গড় হিসাব। উল্লেখ্য, অপারেশন সার্চলাইটের প্রথম রাতের প্রাণহানির সংখ্যাই ছিল কমপক্ষে ৩৫ হাজার। চুকনগর গণহত্যায় প্রাণহানি ঘটেছিল ১০ হাজারেরও বেশি। ১৯৭১ সালের ২৮ মার্চে প্রকাশিত New York Times এর রিপোর্ট অনুযায়ী ২৭ মার্চে প্রাণহানির সংখ্যা ১০ হাজার। ১৯৭১ সালের Sydney Moning Herald এর রিপোর্ট অনুযায়ী মার্চের ২৫ থেকে ২৯ তারিখ পর্যন্ত (৫ দিনে) প্রাণহানির সংখ্যা প্রায় ১ লাখ। এতে দেখা যায়, প্রতিদিন প্রাণহানির সংখ্যা প্রায় ২০ হাজার। সুতরাং ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে প্রাণহানির দৈনিক গড় UNHRC রিপোর্টের ঊর্ধ্বসীমার কাছাকাছি (প্রতিদিন ১২ হাজার) বলেই আমরা ধরে নিতে পারি।

আমাদের মুক্তিযুদ্ধ চলেছে মোট ২৬৭ দিন (২৫ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর)। অতএব, দিনপ্রতি ১২ হাজার নিহত সংখ্যাকে ২৬৭ দিন দিয়ে গুণ করলে মোট নিহতের সংখ্যা দাঁড়ায় ৩২ লাখ ৪ হাজার। আবার UNHRC এর নির্দেশিত ঊর্ধ্বসীমা ১২ হাজার ও নিম্নসীমা ৬ হাজারের গড় যদি হয় ৯ হাজার, তবে মোট নিহতের সংখ্যা দাঁড়ায় অন্ততঃ ২৪ লাখ ৩ হাজার।

(গ) ওয়ার ক্রাইমস ফ্যাক্টস ফাইন্ডিং কমিটি বাংলাদেশে প্রায় ৯৪২টি বধ্যভূমি শনাক্ত করেছিল। অতি সম্প্রতি, ১৯৭১ গণহত্যা নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘরের সমীক্ষা অনুযায়ী ইতিমধ্যেই বাংলাদেশে মোট ৩ হাজার ৪০০টি বধ্যভূমি শনাক্ত করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম পাহাড়তলী বধ্যভূমি স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদের হিসাব অনুযায়ী ১৯৭১ এর ত্রপ্রিল থেকে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত পাহাড়তলী বধ্যভূমিতে প্রায় ২০ হাজারের মতো বাঙালিকে হত্যা করা হয়েছে। আবার ইতিহাসবিদ মুনতাসীর মামুনের গবেষণা অনুযায়ী গল্লামারী বধ্যভূমিতে ১৫ হাজার বাঙালিকে হত্যা করা হয়েছে। রায়ের বাজার বধ্যভূমি ও জল্লাদখানা বধ্যভূমির মোট লাশের সংখ্যা নির্ণয় করা বেশ দুষ্কর।

তবে যদি ত্রিশ লাখ বাঙালিকে শুধু ৩ হাজার ৪০০ বধ্যভূমিতেই হত্যা করা হয় তবে প্রতি বধ্যভূমিতেই অন্তত ৮৮২ জনকে হত্যা করা হয়েছে। এই সংখ্যা প্রাপ্ত তথ্যের চেয়ে অস্বাভাবিকভাবে কম। সুতরাং ত্রিশ লাখ শহীদের সংখ্যার সম্ভাব্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা অর্থহীন। একই সাথে এটাও মনে রাখতে হবে যে, অসংখ্য লাশকে নদীতে বা পানিতে ভাসিয়ে দেয়া হয়েছে। তাই শুধুমাত্র বধ্যভূমির সংখ্যা দিয়ে একাত্তরের শহীদের মোট সংখ্যা নিরূপণ করা একেবারেই হবে না। প্রকৃত শহীদের সংখ্যা ত্রিশ লাখের বেশিই হবে।

(ঘ) ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ৯৩ হাজার পাকিস্তানি সেনা আত্মসমর্পণ করে। এটাও সত্য যে, যুদ্ধে অনেক পাকিস্তানি সেনার মৃত্যুও ঘটেছে। ২০১০ সালে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠিত হওয়ার পর তদন্ত সংস্থা এলাকাভিত্তিক রাজাকার বাহিনীর নাম সংগ্রহের কাজ শুরু করে। এছাড়া মেজর আরেফিন এবং মুনতাসীর মামুনও আলাদাভাবে রাজাকারদের তালিকা তৈরি করার কাজ করেছেন।

সকলের তথ্য অনুযায়ী ১৯৭১ সালে রাজাকারের সংখ্যা ৪৭ হাজার থেকে ৬০ হাজার ছিল। এরা সকলেই পাকিস্তানি বাহিনীর সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বাঙালি নিধন করেছে একাত্তরে। যদি ধরে নেই, অন্তত ৪৭ হাজার রাজাকার সেই সময় ৯৩ হাজার পাকিস্তানি বাহিনীর সাথে ছিল, তবে মোট ঘাতকের সংখ্যা দাড়ায় ১ লাখ ৪০ হাজার। এখন ১ লাখ ৪০ হাজার ঘাতক যদি ত্রিশ লাখ বাঙালিকে নিধন করে থাকে তবে এক একজন ঘাতক মোট ২৬৭ দিনে মাত্র ২১ জনকে হত্যা করেছে। অর্থ্যাৎ একজন ঘাতক মুক্তিযুদ্ধকালে ১৩ দিন পর পর একজন বাঙালিকে হত্যা করেছে। এই সংখ্যাটি কি অবিশ্বাস্য?

ত্রিশ লাখ শহীদের সংখ্যা নিয়ে যারা সংশয় প্রকাশ করেন, অঙ্কটি বেশ কয়েকবার কষে দেখবেন হিসেবটি ঠিক করে বুঝবার জন্য।

তৃতীয় যুক্তির খণ্ডন
যারা দাবি করেন যে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারিতে ভাষণ দেওয়ার সময় ভুলবশত শহীদের সংখ্যা অতিরঞ্জিত করে ত্রিশ লাখ বলে ফেলেছেন, তারা যে কত হাস্যকর মিথ্যাচার করতে পারেন তা ভেবে আমি অবাক হই। কারণ, (ক) ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত “চরমপত্র” অনুষ্ঠানটিতে এম আর আখতার মুকুল ত্রিশ লাখ শহীদের কথা উল্লেখ করেছেন।

(খ) ১৯৭১ সালের ২২ ডিসেম্বর প্রকাশিত দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকার সম্পাদকীয়তে, ১৯৭২ সালের ৫ জানুয়ারিতে প্রকাশিত The Daily Observer, The Morning News এবং রাশিয়ার প্রাভদা পত্রিকার বাংলা সংস্করণের শিরোনামে এবং ১৯৭২ সালের ৯ জানুয়ারিতে প্রকাশিত দৈনিক বাংলার শিরোনামে ত্রিশ লাখ শহীদের কথা উল্লেখ করা হয়।

অতএব, দেখা যাচ্ছে যে, বঙ্গবন্ধুর ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারিতে ভাষণ দেওয়ার অনেক আগে থেকেই ত্রিশ লাখ শহীদের বিষয়টি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম অনুযায়ী একটি স্বীকৃত বাস্তবতায় পরিণত হয়ে গিয়েছিল। তাই ত্রিশ লাখ শহীদ নিয়ে বঙ্গবন্ধু অতিরঞ্জিত করে কিছু বলেছেন তা কখনই হতে পারে না।

সর্বশেষে বলতে চাই, আজ যারা ত্রিশ লাখ শহীদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তারা আসলে নিজেরাই বিভ্রান্ত। খোঁজ নিয়ে দেখলেই জানা যাবে যে, যারা ত্রিশ লাখ শহীদের সংখ্যা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন বা এর বস্তুনিষ্ঠ গবেষণার দাবি করেন তাদের সকলেরই পাকিস্তানি সম্পৃক্ততা রয়েছে হয় পারিবারিকভাবে, নয় রাজনৈতিক বা অর্থনৈতিকভাবে। বাংলাদেশে বসবাসকারী এসব পাকিস্তানি জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী লোকজন কখনই আপনার বা আমার বন্ধু হতে পারে না। আসুন, এদের বর্জন করি, ঘৃণা করি।

লেখক: ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ -প্রসিকিউটর, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।



আপনার মন্তব্য

মুক্তমত বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং