Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

শনিবার ২০ অক্টোবর ২০১৮, ৫ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, পূর্বাহ্ন

প্রচ্ছদ » অর্থনীতি 

রিজার্ভের অর্থ চুরি

সুবিধাভোগীদের ধরতে কাজ করছে ফিলিপাইন ও শ্রীলংকা

সুবিধাভোগীদের ধরতে কাজ করছে ফিলিপাইন ও শ্রীলংকা
প্রতিবেদক ২৯ মার্চ ২০১৬, ৬:৫৬ অপরাহ্ন Print

ঢাকা: বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি হওয়া রিজার্ভের টাকার ব্যাপারে ফিলিপাইনের সিনেটে মঙ্গলবার শুনানি হয়েছে উল্লেখ করে শুভঙ্কর সাহা বলেন, শ্রীলংকার ও ফিলিপাইনের ৩৫টি ভুয়া নোটিশে টাকাগুলো চলে গেছে। এদের মধ্যকার ৪জন সুবিধাভোগী ধরার বিষয়ে দেশগুলো কাজ করছে।

তিনি বলেন, দোষী ব্যাংক ও যারা এ কাজে জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করে টাকা আদায়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেবে।

মঙ্গলবার বিকালে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর সচিবালয়ের নিচ তলায় ব্যাংকটির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র শুভঙ্কর সাহা সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

এসময় তিনি বলেন, ৩টি পৃথক তদন্ত কমিটির কাজ চলমান রয়েছে। এর মধ্যে একটি হচ্ছে সরকার কর্তৃক সাবেক গভর্নর ফরাস উদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত। একটি সিআইডি তদন্ত করছে এবং অন্যটি করছে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফরেনসিক টিম।

আমরা সাইবার সিকিউরিটি ও আইটি সিকিউরিটি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই কাজ করছি। ব্যবস্থাগুলো ঝুঁকিমুক্ত করার জন্য আগের গভর্নরের সময় থেকেই কাজ করা হচ্ছে। এখন এটি নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার জন্য কাজ করা হচ্ছে।

ফিলিপাইনের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংক কোন তথ্য আদান প্রদান করছে কিনা এবং করে থাকলে সেটা কীভাবে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুরোধে ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও তাদের এন্টি মানি লন্ডারিং টিম চুরির সঙ্গে জড়িতদের বের করতে ও চুরির টাকা আদায়ে কাজ করে যাচ্ছে। তাদের সঙ্গে আমাদের একটি সহযোগিতামূলক চুক্তি রয়েছে। এই চুক্তির আওতায় আমরা একে অপরকে সহযোগিতা করছি। এতে তারা আমাদের কাছে কোনও তথ্য চাইলে যেটুকু দেয়া সম্ভব তা দিচ্ছি। তাদের কাছেও আমরা কিছু চাইলে তারা আমাদেরকে দেয়ার চেষ্টা করছে।

সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে শুভঙ্কর সাহা বলেন, অনেক সময় ল্যাপটপগুলো অফিসের পাশাপাশি বাইরেও কর্মকর্তারা ব্যবহার করে থাকেন। সে বিষয়টিও চেক করে দেখা হবে। সাইবার অ্যাটাকের কারণে ল্যাপটপে কোনও ঝুঁকি রয়েছে কিনা এবং কোনও সফটওয়্যার বসানোর প্রয়োজন আছে কিনা সেটাও তদন্ত করে দেখা হবে।

কর্মকর্তাদের ল্যাপটপগুলো নেয়ার ফলে কাজে কোনও ধরনের অসুবিধা হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাময়িক একটু অসুবিধা তো হবেই। তারপরও প্রত্যেকের যেহেতু ল্যাপটপের পাশাপাশি ডেস্কটপ রয়েছে, তাই কাজে খুব বেশি অসুবিধা হবে বলে মনে হয় না। শুধু বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় নয়, ব্যাংকের ট্রেনিং অফিস ও শাখা কার্যালয়ের ল্যাপটপগুলোও পরীক্ষা করা হবে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ ব্যাংকে প্রায় দেড় হাজার ল্যাপটপ রয়েছে।

ব্রেকিংনিউজ/জেএম/এইচএস



আপনার মন্তব্য

অর্থনীতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং