Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

সোমবার ২০ মে ২০১৯, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, অপরাহ্ন

প্রচ্ছদ » অর্থনীতি 

‘ব্যাংকিং খাত সরকারের সিদ্ধান্তেই পরিবর্তন হচ্ছে’

‘ব্যাংকিং খাত সরকারের সিদ্ধান্তেই পরিবর্তন হচ্ছে’
জোনায়েদ মানসুর ১৬ মার্চ ২০১৬, ৭:১২ অপরাহ্ন Print

ঢাকা: বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ড. আতিউর রহমানের পদত্যাগকে দেশের ব্যবসায়ী ও অর্থনীতিবিদদের মনে নানা প্রশ্ন জেগেছে। কিন্তু কেউই কোন কথা বলতে চাননি গণমাধ্যমে। ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া যাই হোক গভর্নরের পদ থেকে ড. আতিউর রহমানের সরে যাওয়াকে ব্যাংক ও দেশের অর্থনীতির জন্য কল্যাণকর হবে বলছেন সংশ্লিষ্টরা। তারা এও বলছেন যে, ব্যাংকিং খাতে যত পরিবর্তন হচ্ছে, তা সরকারের সিদ্ধান্তেই।

বুধবার সারাদিন থমথমে অবস্থা বিরাজ করেছে মতিঝিলের ব্যাংক পাড়ায়। বিশেষ করে বাংলাদেশ ব্যাংকে। ঠিক যেন বড় দুর্যোগের পর নতুন কোন সকাল।

জানা গেছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের দায়ের করা মামলা তদন্তে বুধবার সকালে সিআইডি টিম কেন্দ্রীয় ব্যাংকে প্রবেশ করে।

অপরদিকে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে একটি দল যায় অর্থমন্ত্রণালয়। নতুন গভর্নরের খোঁজ-খবর জানতেই তারা মন্ত্রণালয় যায় বলে জানা গেছে। এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের অন্যান্য কাজকর্ম মোটামুটি স্বাভাবিক ছিল।

এ প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক শুভঙ্কর সাহা বলেছেন, স্বাভাবিকভাবেই ব্যাংকের কার্যক্রম চলছে। সব দপতর ঠিকঠাক মত কাজ করছে। কোন সমস্যা নেই।

নতুন গভর্নর যোগদানের মধ্য দিয়ে আরও গতি ফিরবে বলে ব্রেকিংনিউজকে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এস. কে সুর চৌধুরী।

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ লোপাট নিয়ে সমালোচনার মধ্যে পদত্যাগ করে ড. আতিউর রহমান ‘সৎ সাহসের’ পরিচয় দিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গভর্নরের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করে এই ঘটনায় অভিযুক্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের অন্যান্য কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছেন তিনি।

গভর্নর পরিবর্তনের বিষয়ে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের গবেষণা পরিচালক অর্থনীতিবিদ ড. জায়েদ বখতের কাছে জানতে চাইলে তিনি ব্রেকিংনিউজ ডটকম ডটবিডিকে বলেন, সরকার দেশের স্বার্থে যা করেছেন তা ভালো করেছেন। যেহেতু সমস্যা হয়েছে সেহেতু তদন্ত হওয়া দরকার।

রিজার্ভ লুটের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের টাকা উদ্ধারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা নির্ভর করবে তদন্তের ওপর। বিদেশি ব্যাংকগুলো সাহায্য করলে উদ্ধার করা সম্ভব হবে। তবে বাংলাদেশ অর্থনীতিতে বড় কোন ক্ষতি হবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর ও কৃষি ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান খন্দকার ইব্রাহিম খালেদ ব্রেকিংনিউজকে বলেন, হ্যাকিং বিষয়টি বাংলাদেশে প্রথম। বাংলাদেশ ব্যাংক এ বিষয়ে আমাকে কিছু বলেনি। অনেক দেশেই ঘটে। হংকং সেন্ট্রাল ব্যাংকেও ঘটেছে। আমেরিকা রাশিয়ায় অনেক হয়েছে।

লুট হওয়া টাকা উদ্ধারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আরাফাত রহমানের কোকোর ১টি হিসাবে টাকা ফেরত পেতে ৩ বছর সময় লেগেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের বিষয়টি অনেক অ্যাকাউন্টে। এ টাকা উদ্ধারে অনেক সময় লাগবে।

ড. আতিউর রহমানের পদত্যাগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ড. আতিউর রহমানের ব্যাপারে কিছু বলতে চাচ্ছি না। নৈতিক দায়িত্ববোধ থেকে তিনি পদত্যাগ করছেন।

এফবিসিসিআই সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদ ব্রেকিংনিউজকে বলেন, আমরা ব্যবসায়ীরা যেটা মনে করি, ব্যবসা উন্নয়নের জন্য ব্যক্তিগত কারও ওপর নির্ভর করে না। ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সরকার ও ব্যাংক সবসময় থাকে। অর্থনীতি উন্নয়ন নির্ভর করে সিস্টেমের ওপরে।

রিজার্ভ লুট বিষয়ে তিনি বলেন, আমি আাশবাদি সরকার এ ব্যাপারে যথাপযুক্ত পদক্ষেপ নিবে। এ অর্থ লুটে যারা জড়িত তাদের ব্যাপারে সরকার সজাগ আছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক এমএম আকাশে জানতে চাইলে তিনি ব্রেকিংনিউজকে বলেন, সরি, এ ব্যাপারে আমি কিছু বলতে চাচ্ছি না।

ব্রেকিংনিউজ/জেএম/এইচএস



আপনার মন্তব্য

অর্থনীতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং