Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

রবিবার ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, পূর্বাহ্ন

প্রচ্ছদ » কৃষি ও পরিবেশ 

বরগুনায় আলু ক্ষেতে পচন রোগ, দিশাহারা কৃষক

বরগুনায় আলু ক্ষেতে পচন রোগ, দিশাহারা কৃষক
ছবি: ব্রেকিংনিউজ
এম এ সাইদ খোকন ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৬, ১:১৮ অপরাহ্ন Print

বরগুনা: জেলার বিভিন্ন এলাকায় আলু ক্ষেতে ব্যাপক হারে পচন ধরায় দিশাহারা হয়ে পড়েছে কৃষকরা।

ট্রেনিং ও পরামর্শের অভাবে আলু ক্ষেতে নিয়ম মতো সার ও ওষুধ ব্যবহার না করার কারনে ক্ষেতে পচন ধরে গাছ হলুদ বর্ণ ধারণ করে মরে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন কৃষকরা।

কৃষকরা জানান, ব্যাপক লোকসান হবে তাদের। এতে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ার আশঙ্কা করছেন অনেক কৃষক। উপকূলীয় জেলা বরগুনায় আলু চাষে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা থাকলেও কৃষি বিভাগের অবহেলার কারণে কৃষকদের আজ পথে বসার উপক্রম।

কৃষকের অভিযোগ কৃষি বিভাগের অবহেলার কারণ কাঙ্ক্ষিত ফলন থেকে তারা বঞ্চিত হয়েছেন। অন্যদিকে কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, ফলন যা হয়েছে তাতে কৃষকের লোকসান হবেনা।

বরগুনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, চলতি মওসুমে ৬ টি উপজেলায় ১০২০ হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করে কৃষি বিভাগ। যার মধ্যে আবাদ করা হয়েছে ১১৫০ হেক্টর জমিতে। বরগুনা সদর উপজেলায় ১২০, আমতলী ৮০, তালতলী ২৫, বেতাগী ৩৫০, বামনা ৭০ এবং পাথরঘাটা উপজেলায় ৫৫০ হেক্টর জমিতে আলুর চাষ করা হয়। বরগুনা জেলায় সবচেয়ে বেশী আলুর চাষ করা হয় পাথরঘাটা উপজেলার কাকচিরা ইউনিয়নে।

সরেজমিনে দেখা যায়, বেশীরভাগ এলাকার আলু ক্ষেতে পচন ধরে আলু গাছ শুকিয়ে গেছে। এতে করে মাটির নীচে আলু মেটে বর্ণ ধারণ করেছে।

কাকচিরা ইউনিয়নের জালিয়াকাটা গ্রামের কৃষক নয়া মিয়া হাওলাদার জানান, তিনি ২ একর জমিতে আলুর চাষ করেন। ২ লাখ টাকা তার খরচ হয়েছে। ইতোমধ্যে তিনি আলু যা উত্তোলন করেছেন তাতে শতাংশ প্রতি আলু পেয়েছেন ৩ মণ করে। গত বছরের তুলনায় অর্ধেক।

তিনি বলেন, পচন রোধের ব্যাপারে পাথরঘাটা কৃষি অফিসকে জানানো হলেও কেউ তারা যোগাযোগ করেনি বা পরামর্শ দেয়নি। কৃষকরা অনেকেই কৃষি ব্যাংক, সংগ্রাম, সংকল্প এজিও থেকে ৬০-৭০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে আলুর চাষ করেছেন। আলুর এমন পচন ব্যাধির কারণে সবাই তারা লোকসানে পড়েছেন।

বরগুনা কৃষি সপ্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সাইনুর আলম কৃষকদের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কৃষি বিভাগ থেকে কর্মকর্তারা সবসময় মাঠে থেকে কৃষকদের পরামর্শ দিয়েছেন। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর আলুর ফলন অনেক বেশী হয়েছে। কৃষকদের যেভাবে পরামর্শ দেয়া হয়েছে, সেভাবে তারা সার ও ওষুধ প্রয়োগ করেনি তাই হয়ত সমস্যা হতে পারে।

ব্রেকিংনিউজ/প্রতিনিধি/ডিএইচ



আপনার মন্তব্য

কৃষি ও পরিবেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং