Facebook   Twitter   Google+   RSS (New Site)

বৃহস্পতিবার ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, পূর্বাহ্ন

প্রচ্ছদ » কৃষি ও পরিবেশ 

ক্যান্সার রোধে বিষমুক্ত সবজি চাষে এগিয়ে আসছে চাষিরা

ক্যান্সার রোধে বিষমুক্ত সবজি চাষে এগিয়ে আসছে চাষিরা
ছাদেকুল ইসলাম রুবেল ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৬, ২:২২ পূর্বাহ্ন Print

গাইবান্ধা: মানবদেহে ক্যান্সারসহ দীর্ঘমেয়াদী নানা শারীরিক সমস্যা রোধে কীটনাশক ও রাসায়নিক সার ছাড়াই বিষমুক্ত সবজি চাষে এগিয়ে আসছে গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার সবজি চাষিরা।

উপজেলার কিশোরগাড়ী ইউনিয়নে বিষমুক্ত সিম, ফুলকপি, বাঁধাকপি, টমেটো, মরিচ, লাউ, কুমড়াসহ বিভিন্ন সবজি চাষ করেছেন চাষিরা। তাদের সার্বিক সহযোগিতা, দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন-স্থানীয় নিবিড় ক্যান্সার, হেলথ অ্যান্ড অ্যাডুুকেশন সোসাইটি এবং উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।

সরেজমিন পরিদর্শনে-কিশোরগাড়ী ইউনিয়নের চকবালা গ্রামের সবজি চাষি সিরাজুল ইসলাম, বেলী বেগম ও এমদাদুল হক জানান, মূলত নিবিড় ক্যান্সার, হেলথ অ্যান্ড অ্যাডুুকেশন সোসাইটির উদ্যোগে আমরা বিষমুক্ত সবজি চাষ শুরু করি। বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনের লক্ষ্যে আমরা রাসানিক সারের বদলে জৈবসার ও কীটনাশকের পরিবর্তে সেক্স ফ্রেমন পদ্ধতি অনুসরণ করছি। এ পদ্ধতিতে ফলন কিছুটা কম হলেও উৎপাদিত সবজি তুলনামূলক বেশি দামে বিক্রি হওয়ায় এ পদ্ধতিতে আগ্রহী হচ্ছেন চাষিরা।

নিবিড় ক্যান্সার, হেলথ অ্যান্ড অ্যাডুুকেশন সোসাইটির প্রধান নির্বাহী আবদুল্লাহ আল মামুন ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘ক্যান্সার প্রতিরোধ ও সুস্থ্য জীবনের জন্য নিরাপদ খাদ্য’ এ প্রতিপাদ্যেকে সামনে রেখে আমরা কাজ করছি। বর্তমানে শাক-সবজিসহ সকল খাদ্য শস্যে মাত্রাতিরিক্ত রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহৃত হচ্ছে। এরপর সেগুলো দীর্ঘদিন তাজা রাখতে ব্যবহার করা হচ্ছে ফরমালিন। যা মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।

এ থেকে পরিত্রাণের লক্ষ্যে কৃষকদের ফ্রেমন পদ্ধতিতে বিষমুক্ত সবজি চাষে চাষিদের উদ্বুদ্ধকরণ ও সার্বিক সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, এ পদ্ধতিতে উৎপাদিত সবজি বিক্রির জন্য ‘বিষ মুক্ত সবজির দোকান’ খোলা হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আজিজুল ইসলাম জানান, সার-কীটনাশক ব্যবহার মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর। এরমধ্যে কিছু কীটনাশক আছে যেটা ক্ষেতে ব্যবহারের সপ্তাহ পর তুলতে হয়। দেখা যায়, অনেক চাষি বেশি লাভের আশায় অথবা অজ্ঞতা বশত: কীটনাশক স্প্রে করার পরদিন থেকেই সবজি তুলে বাজারজাত করছেন।

এসব খাদ্য মানবদেহে দীর্ঘমেয়াদী প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। বিষযুক্ত খাদ্যগ্রহণের ফলে আমরা ক্যান্সার, ডায়াবেটিক ও কিডনীরোগসহ দীর্ঘমেয়াদি বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছি।

সেক্স ফ্রেমন পদ্ধতি সম্পর্কে তিনি বলেন- সেক্স ফ্রেমন পদ্ধতি মূলত সবজি ক্ষেতের মধ্যে একটি প্লাস্টিকের বক্সে রাখা বিশেষ পদার্থ। যা গন্ধ সৃষ্টি করে এবং স্ত্রী কীট-পতঙ্গকে আকৃষ্ট করে। তারা বক্সে রাখা সাবান মিশ্রিত পানিতে পড়ে মারা যায়।

ব্যবহার প্রণালী সম্পর্কে তিনি বলেন, ৩ শতক জমির ফসল কীট-পতঙ্গ মুক্ত রাখতে একটি ফ্রেমন ও সাবান পানি মিশ্রিত বক্সই যথেষ্ট। এভাবে জমি পরিমাপ করে সেক্স ফ্রেমন-বক্স বসাতে হবে। তবে, এ পদ্ধতিতে ফলন কিছুটা কম হয়। সে কারণে জনসচেতনতা সৃষ্টি করে এসব বিষমুক্ত সবজি তুলনামূলক কিছুটা বেশি দামে বাজারজাত নিশ্চিত করণের উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

ব্রেকিংনিউজ/প্রতিনিধি/এসআই



আপনার মন্তব্য

কৃষি ও পরিবেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত ৩২


উপরে

ব্রেকিং